1. admin@dailydigantor.com : admin :
ভোলায় জমি বিরোধে হত্যার চেষ্টায়-৩ আসামিকে সাজা প্রদান – দৈনিক দিগন্তর
রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ০৮:২৪ পূর্বাহ্ন
রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ০৮:২৪ পূর্বাহ্ন

ভোলায় জমি বিরোধে হত্যার চেষ্টায়-৩ আসামিকে সাজা প্রদান

দৈনিক দিগন্তর ডেস্ক :
  • প্রকাশের সময় : বুধবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২৩

 

ভোলা জেলা প্রতিনিধি।। ভোলা শিবপুর ইউনিয়নে ৫ নং ওয়ার্ড জমি জমার বিরোধে আসামীরা বাদী ফরিদ এর স্ত্রী আরজুকে রাতে সঙ্গোপনে ঘরে ঢুকে গলা কেটে গুরুতর জখম সহ হত্যা চেষ্টার অপরাধে আসামী, ভুট্টোকে দন্ডবিধির ৪৫৭ ধারায় ০২ বছর কারাদন্ড সহ ৩০০০/- টাকা জরিমানা দন্ড বিধির ৩০৭ ধারায় ০৬ বছর সশ্রম কারাদন্ড সহ ৬০০০/- টাকা জরিমানা এবং আসামী সালাউদ্দিন, কাশেম, নুর আলম এর বিরুদ্ধে দন্ড বিধির ৪৫৭ ধারায় ০২ বছর সশ্রম কারাদন্ড সহ ৩০০০/- টাকা জরিমানা এবং দন্ড বিধির ৩০৭/৩৪ ধারায় ৩ বছর সশ্রম কারাদন্ড সহ ৩০০০/- টাকা জরিমানা সাজা প্রদান করেন ভোলার অতিরিক্ত চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট জনাব অসীম কুমার দে।

বাদী বলেন আমি কাজের সুবাদে ঢাকা থাকি আসামিরা জমি জমা নিয়ে বিরোধ চালিয়ে আসছে পূর্ব বিরোধের জের হিসেবে উল্লেখিত আসামিরা রাত্রিবেলা সংগোপনে কৌশলে আমার বসত ঘরে প্রবেশ করিয়া আমার স্ত্রীকে হত্যার উদ্দেশ্যে দাঁড়ালো অস্ত্র ধারা কলা কাটিয়া গুরুতর যখন রক্তাক্ত করিয়া চলিয়া যায় আমি উক্ত ঘটনার সংবাদ পেয়ে ঢাকা থেকে বাড়িতে আসিয়া উল্লেখিত সাক্ষী গণের নিকট ঘটনার বিস্তারিত শুনিয়া থানায় আসিয়া অত্র এজাহার দায়ের করিতে বিলম্ব হই আমার তিন মেয়ে মাকে নিয়ে আমার স্ত্রী ১ নং সাক্ষী বাড়িতে থাকে ১৪-৭-২০১৮ তারিখ রাত্র আনুমানিক ১১ঘটিকার সময় রাতে খাবার খেয়ে আমার স্ত্রী সাত বছরের মেয়ে লামিয়া ১২ বছরের মৌসুমি ও মেয়ে ২নং সাক্ষী মাহিমা ১৫ মাঝখানে একই চকিতে ঘুমিয়ে পড়ে মা ও ৩ নং সাক্ষী বারিন্দায় ঘুমিয়ে পড়ে ১৪-৭-২০১৮ তারিখ দিবাগত রাত্র আনুমানিক ৩ ঘটিকায় আমার ছোট মেয়ে লামিয়া ঘুম থেকে জাগিয়া তাহার মাকে দেখিতে না পাইয়া তাহার বোন ২ নং সাক্ষী কে ডাক দিয়া গুম হইতে জাগিয়া তুলে মা কোথায় জিজ্ঞেস করনলে ২নং সাক্ষী তার মাকে খোঁজ করার জন্য চকির উপর হইতে নামিলি দেখতে পায় যে তাহার মা ১ নং সাক্ষী গুরুতর রক্তাক্ত গলাকাটা অবস্থায় পড়ে আছে ২ নং সাক্ষীর চিৎকার শুনিয়া আমার মা ৩নং সাক্ষী সহ উপরোক্ত সাতক্ষীরা এবং বাড়ির আশেপাশের লোকজন আসিয়া আমার স্ত্রী গুরু তোরা রক্তাক্ত অবস্থায় দেখিতে পায় তাহাকে অটো বোরাকে দ্রুত চিকিৎসার জন্য ভোলা হসপিটালে নিয়ে গেলে জরুরী বিভাগে কর্মরত ডাক্তার আমার স্ত্রী কে তাহার অবস্থা আশঙ্কাজ হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে রেফার করেন তারপর আমি ১৬-৭-২০১৮নিম্নলিখিত আসামির বিরুদ্ধে ভোলা সদর মডেল থানায় মামলা দাখিল করি।

Facebook Comments Box
সংবাদটি শেয়ার করুন :
এ জাতীয় আরও সংবাদ

ফেসবুকে আমরা